সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সফর, ১৪৪৪ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আমি পালিয়েছি, আমি মারিনি ভাই, এসআই আকবরের ভিডিও ভাইরাল

০৯-নভে-২০২০ | jonmobhumi | 391 views

Spread the love

সিলেটে পুলিশি হেফাজতে থাকাকালে নির্যাতনের কারণে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত পুলিশের বরখাস্ত হওয়া সাব ইনসপেক্টর আকবর হোসেন সোমবার গ্রেপ্তার হয়েছে। এদিনই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও ছড়িয়ে পরে। যেখানে আকবর নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেছেন, আমি মারিনি ভাই। পালিয়ে ভারতের খাসিয়াপল্লিতে আশ্রয় নেওয়ার কারণ অনেকটা কান্নার সুরে বলছিলেন তিনি। তাকে বলতে শোনা যায়, ‘আমাকে একজন সিনিয়র অফিসার পালাতে বলেছিলেন। তাই আমি পালিয়েছি। আমি মারিনি ভাই…।

সিলেটের কানাইঘাট সীমান্তের ডোনা এলাকা থেকে আকবরকে বাংলাদেশের পুলিশের কাছে সোপর্দ করার আগের ভিডিওতে এ রকম চিত্র দেখা গেছে। ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

দুই মিনিটের বেশি সময় স্থায়ী দুটো ভিডিও পাওয়া গেছে। প্রথম ভিডিওটি দুই মিনিট পাঁচ সেকেন্ডের। এতে দেখা গেছে, আকবরকে পিছমোড়া করে বেঁধে রাখা। দুই হাত পেছনে রেখে রশি টাঙিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দেখা গেছে কয়েকজনকে। এ সময় আকবর বলেন, ‘আমাকে একজন সিনিয়র অফিসার বলেছেন, তুমি চলে যাও, দুই মাস পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফিরে আসবা।… আমি মারিনি ভাই।

দ্বিতীয় ভিডিওতে দেখা গেছে আকবর বসা। ২ মিনিট ৩৫ সেকেন্ড স্থায়ী এই ভিডিওতে শোনা যায়, আকবরকে নাম জিজ্ঞেস করা হচ্ছে। এ সময় আকবর বসা ছিলেন। নাম কি? জানতে চাওয়ায় আকবর দুই হাত জোড় করে বলেন, ‘আমি আকবর’। ‘তুমি আকবর, তুমি তো পালাইয়া আসছো, হত্যা করছো?’জবাবে আকবর বলেন, ‘না, ভাই আমি মারিনি। হাসপাতালে নিয়েছি।’এ সময় সাথে থাকা কয়েকজনকে বলতে শোনা যায়, ‘মাইরও না। এইটা বাংলাদেশী।…বিচার হবে। বিচার করবে তারা…।’

আকবর ‘আমি বাঁচব না ভাই…’ বলে প্রলাপ বকছিলেন। আকবরকে নাম জিজ্ঞেস করার সময় হাতজোড় করে থাকতে দেখা যায়। যারা তাকে নানা প্রশ্ন জিজ্ঞেস করছিলেন, তাদের কথাবার্তা বাংলা হলেও খাসিয়াদের মতো টান ছিল। আর আকবরের গলায় পুঁথির মালা ছিল। অনেকটা খাসিয়া যুবকের মতো সাজে ছিলেন আকবর। কথাবার্তার একপর্যায়ে পানির বোতল এগিয়ে দেওয়া হয় আকবরকে।

ভিডিওতে যে স্থানে আকবরকে দেখা গেছে, সেটি পাহাড়ি এলাকা। ঝোপঝাড় ও ঝরনা মাড়িয়ে আকবরকে নিয়ে যেতে দেখা যায়। এরপর আকবরকে বাংলাদেশের পুলিশে হস্তান্তর করা হয়। পুলিশে সোপর্দ করার আগে আকবরকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ধরা হয়। এরপর রশি দিয়ে বেঁধে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

আকবরের এই ভিডিও সম্পর্কে জানতে চাইলে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) লৎফুর রহমান বলেন, ‘আমরা আকবরকে পেয়েছি সীমান্ত এলাকার বাংলাদেশ সীমানায়। এর আগে আকবর কোথায় ছিলেন, এ সম্পর্কে আমাদের কাছে তথ্য হচ্ছে। আকবর ভারত পালানোর চেষ্টা করেছিলেন।’

ডোনা সীমান্ত এলাকার ওপারে মেঘালয় রাজ্য। পাহাড়ের পাদদেশজুড়ে ভারতের খাসিয়াপল্লি। সিলেট নগরীর আখালিয়া নিহারিপাড়ার বাসিন্দা রায়হানকে ১০ অক্টোবর রাতে সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে তুলে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। পরের দিন ১১ অক্টোবর তিনি মারা যান। এ ঘটনায় হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে তার স্ত্রী তাহমিনা আক্তার বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন। ১২ অক্টোবর ফাঁড়ির ইনচার্জের দায়িত্বে থাকা এসআই আকবর হোসেনসহ চারজনকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। পরের দিন থেকে তিনি লাপাত্তা ছিলেন।

সার্চ/অনুসন্ধান করুন