রবিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১০ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আরো ৬১ বীরাঙ্গনাকে স্বীকৃতি, মোট সংখ্যা দাড়াল ৪০০

১৫-ডিসে-২০২০ | jonmobhumi | 399 views

Spread the love

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের সহযোগীদের হাতে নির্যাতিত আরো ৬১ জন বীরাঙ্গনাকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিয়েছে সরকার। তাদের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিয়ে গত সোমবার গেজেট জারি করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) ৭০তম সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বীরাঙ্গনারা এ স্বীকৃতি পেলেন। এ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাওয়া বীরাঙ্গনার সংখ্যা দাঁড়াল ৪০০ জনে।

সর্বশেষ যে ৬১ জন নারী বীর মুক্তিযেদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পেলেন তারা হলেন- নাটোর সদর উপজেলার বড়গাছা পালপাড়ার মৃত রবীন্দ্রনাথ পালের স্ত্রী আশালতা পাল, এই জেলার সদর উপজেলার পশ্চিম মাধনগর গ্রামের মৃত আব্দুল সোবহানের স্ত্রী মোছা. মানিকজান, একই গ্রামের আনিছুর রহমানের স্ত্রী মোছা. ঘালিমা বেগম, ভট্টপাড়া গ্রামের মৃত ইব্রাহিম মন্ডলের স্ত্রী মোছা. ইয়ারজান, পশ্চিম মাধনগর গ্রামের মো. জয়েন উদ্দিনের স্ত্রী মোছা. সমর্থনভান,ভট্টপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের স্ত্রী মোছা. রেখা বেগম, কানাইখালী গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের স্ত্রী মোছা. হাজেরা বেগম, কাঠুয়াগাড়ী গ্রামের মৃত ইসমাইলের স্ত্রী মোছা. হালিমা বেগম, একই জেলার নলডাঙ্গা উপজেলার হাজরা গ্রামের মো. ঘারুন অর রশিদও স্ত্রী মোছা. ফরিদা বেগম,দিঘাপাতিায় গ্রামের মৃত সুলতান খাঁর মেয়ে মোছা. লাইলী বেগম এবং নাটোর সদরের উলুপুর গ্রামের মো. জোনাব আলীর স্ত্রী মোছা. ফাতেমা বেগম।

অন্যরা হলেন-কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার নিকলী খালিশা হাটি গ্রামের আব্দুল মনাফ-এর স্ত্রী মোছা. সিজু বেগম, মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার মানগাঁও গ্রামের আব্দুল মনাফ-এর স্ত্রী বেগম আছকিরুন নেছা, পিরোজপুর জেলার পশারীবুনিয়া গ্রামের আশুতোষ চক্রবর্তীর স্ত্রী রেনুকা চক্রবর্তী, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার পাইকা শিমুল গ্রামের মৃত মোছাব্বের আলীর স্ত্রী মৃত মোছা. রেনু বেগম, ব্রাক্ষ¥ণবাড়িয়ার চান্দি গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের স্ত্রী সাহেরা বেগম, বগুড়ার বারপুর স্কুলপাড়ার মৃত মো. শাহাদত আলীর স্ত্রী মোছা. জরিনা বিবি, ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার কালিপুর (ঝাবরটালা) গ্রামের মৃত সফিজ উদ্দিনের স্ত্রী মোছা. রোপন বেওয়া, একই উপজেলার কাশিপুর (চিকনমাটি) গ্রামের মৃত নিয়াসু মোহাম্মদের স্ত্রী মোছা. মোজেফা খাতুন। পটুয়াখালী জেলা সদরের টাউন কালিকাপুর গ্রামের মৃত আব্দুল হাকিম আলী সিকদারের স্ত্রী হাজেরা বেগম, একই জেলার গিলাবুনিয়া গ্রামের আজহার মোল্লার স্ত্রী ফুল বরু ওরফে ফুল বানু, ইটবাড়িয়া গ্রামের মো. মোসলেম আলীর স্ত্রী মনোয়ারা বেগম, বোতলবুনিয়া গ্রামের আব্দুল হক পাহলানের স্ত্রী সালেহা বেগম, গেড়াখালী গ্রামের মো. আনছার আলীর স্ত্রী আনোয়ারা বেগম, ইটবুনিয়া গ্রামের আয়নালী হাওলাদারের স্ত্রী ছৈতুন নেছা, একই গ্রামের মৃত জয়নুদ্দিনের স্ত্রী রিজিয়া বেগম,মো. এছাহাক প্যাদার স্ত্রী মৃত হাচেন ভানু, লেদাই মেম্বরের স্ত্রী মৃত হাচন ভানু,মৃত কাঞ্চন প্যাদার স্ত্রী মৃত জয়ফুল,মৃত ধলু হাওলাদারের স্ত্রী মৃত ছকিনা খাতুন, আব্দুল আলী ফকিরের স্ত্রী মৃত ফুল ভানু, শিয়ালি গ্রামের মৃত আজজ প্যাদার স্ত্রী মোছা. মনোয়ারা বেগম, দুর্গাপুর গ্রামের মেনাজ তালুকারের স্ত্রী জমিলা বেগম এবং গোরস্থান রোডের আব্দুল আজিজের স্ত্রী মৃত জোবেদা ।

সার্চ/অনুসন্ধান করুন