বুধবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

এবার ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক দিলেন ডা. জাকির নায়েক

২৮-অক্টো-২০২০ | jonmobhumi | 404 views

Spread the love

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানের পর এবার ফরাসি পণ্য বয়কটের ডাক দিয়েছেন জনপ্রিয় ইসলামিক স্কলার ও বক্তা ডা. জাকির নায়েক। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফায়েড পেইজে ফ্রান্সের সকল সেবা ও পণ্য বয়কট করতে সারা বিশ্বের সকল মুসলমানের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ফেসবুক পোস্টে জনপ্রিয় ইসলামিক স্কলার ও বক্তা ডা. জাকির নায়েক বলেন,‘মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে অবমাননার কারণে আমাদের সকলের উচিৎ ফ্রান্সের পণ্য ও সেবা বর্জন করা।’

এ সময় তিনি তার পোস্টে ফ্রান্সের বিভিন্ন পণ্য ও সেবাদানকারী কোম্পানির লোগো এবং তালিকা প্রকাশ করেন। মুহূর্তেই তা কয়েক লাখ প্রতিক্রিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

এদিকে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর মুসলমানদের কটাক্ষ করে নেতিবাচক মন্তব্য আর পদক্ষেপে রীতিমতো সরগরম মুসলিম বিশ্ব।

এর আগে ম্যাক্রোঁর ইসলাম এবং মুসলমানবিরোধী কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে ফরাসি পণ্য বয়কটের জন্য তুরস্কের নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। প্রথমবার পণ্য বয়কটের ডাক আসে কুয়েতের বিভিন্ন মার্কেট থেকে। কাতারের ব্যবসায়ীরা ফরাসি পণ্য দোকান থেকে বের করে ফেলে দিচ্ছেন, আবার কেউ কেউ সরিয়ে নিচ্ছেন। আবার অনেকেই নতুন অর্ডার বাতিল করেন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ইসলাম এবং মুসলমানদের আক্রমণ করায় ম্যাক্রোঁর নিন্দা জানিয়েছেন।

ম্যাক্রোঁর এমন কাণ্ডের পর বেশ কয়েকটি আরব দেশ ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক দেয়। এরপরই টনক নড়ে ফ্রান্সের। এবার তারা আরব দেশগুলোর প্রতি পণ্য বয়কট বন্ধের অনুরোধ জানিয়েছে। ফ্রান্সের পণ্য বয়কট না করার অনুরোধ জানিয়ে ২৫ অক্টোবর একটি বিবৃতিও প্রকাশ করে ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এদিকে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ক্ষমা না চাইলে অ্যামাজন বনে জ্বলতে থাকা দাবানল নিয়ন্ত্রণে জি-সেভেনের দুই কোটি ২০ লাখ ডলার অর্থ সহায়তা গ্রহণ করা হবে না বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো। তবে একজনের ভুল সিদ্ধান্তে বিশ্ব অ্যামাজনকে ধ্বংস হয়ে যেতে দেবে না বলে পাল্টা মন্তব্য করেছেন ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

সার্চ/অনুসন্ধান করুন