শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

কমলা হ্যারিসকে রানিংমেট করে জো বাইডেন তাঁর পরাজয় নিশ্চিত করেছেন

১৮-আগ-২০২০ | jonmobhumi | 608 views
Baiden & Komola

Spread the love

শিতাংশু গুহ,নিউইয়র্ক ।। ডেমোক্রেট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন যেদিন ঘোষণা করেছিলেন যে, তিনি একজন মহিলাকে তার রানিংমেট বা ভাইস-প্রেসিডেন্ট হিসাবে মনোনীত করবেন, সেদিনই তিনি  হেরে গেছেন। মঙ্গলবার ১১ আগষ্ট ২০২০ তিনি তাঁর ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসাবে জ্যামাইকান-ইন্ডিয়ান কৃষ্ণাঙ্গ ক্যালিফোর্নিয়ার সিনেটের কমলা হ্যারিস’৫৫-কে মনোনয়নের কথা ঘোষণা করেছেন। আর এই ঘোষণার মধ্যে দিয়ে জো বাইডেন তাঁর পরাজয় নিশ্চিত করেছেন। 

বাইডেন’ ৭৭। জয়ী হলে তিনি ক্ষমতা নেবেন ৭৮’র বছর বয়সে (জন্ম তারিখ ২০শে নভেম্বর ১৯৪২)। তাঁর কিছু হয়ে গেলে কমলা হ্যারিস হবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। বাইডেনের স্বাস্থ্য খারাপ নয়, খুব ভালো তাও নয়! তাই দ্বিতীয় টার্মে তিনি নির্বাচন করবেন বা করতে পারবেন, সেটি অনেকটা অসম্ভব। সেক্ষেত্রে কমলা হ্যারিস হবেন ফেভারিট প্রার্থী। আমেরিকানরা কি একজন ভারতীয় বংশোদ্ভূতকে তাঁদের প্রেসিডেন্ট হিসাবে দেখতে চান? যদি না চান, তাহলে ট্রাম্প সহজ জয় পাবেন। 

কমলা হ্যারিসকে স্বাগত জানিয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, আমেরিকার জন্যে একটি শুভ দিন। কমলা হ্যারিস যোগ্য, তাঁর যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন নেই। সিনেটে তিনি বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর। মনোনীত হবার পর তিনি বলেছেন, আমি কৃতজ্ঞ; জো বাইডেনকে ‘কমান্ডার ইন চীফ’ করার জন্যে সবকিছু করবো। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, কমলা হ্যারিস প্রাথমিক নির্বাচনে মোটেও ভালো করেননি এবং একজন বিচারপতি নিয়োগে যথেষ্ট হয়রানি করেছেন। 

জো বাইডেন হয়তো যোগ্যতার জন্যে কমলা হ্যারিসকে তাঁর রানিং-মেট করেছেন। আল গোর তাই করেছিলেন। তিনি যোগ্য প্রার্থী হিসাবে ইহুদী সিনেটর জো লিবারম্যানকে ভাইস-প্রেসিডেন্ট নিয়েছিলেন। তিনি হেরেছেন। ইহুদী বিদ্বেষী একটি গোষ্ঠী তাকে ভোট দেয়নি। কমলা’র গায়ে ভারতীয় ও হিন্দু গন্ধ আছে, এতে হয়তো ভোট কমবে। সব কমলা মিষ্টি নয়? ‘সুন্দরী কমলা নাচে’ গানটি বা নাচ অনেকের পছন্দ হলেও ‘কমলা’ নামে ভোট আসার কথা নয়! 

বাইডেন কেন কমলা হ্যারিসকে নিলেন? কোন কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা এর আগে ভাইস-প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হননি। বাইডেন কালো ভোট চাইছেন। প্রেসিডেন্ট রেসে’র শুরুতে কমলা হ্যারিস ছিলেন প্রতিদ্ধন্ধী। তাঁকে নিয়ে বাইডেন জানান দিচ্ছেন, তিনি বিরুদ্ধবাদীদের সাথে কাজ করতে পারেন। আরো ইক্যুয়েশন হচ্ছে, ট্রাম্পের কাছে কমলা হ্যারিসের বিরুদ্ধে তেমন কিছু নেই। কমলা হ্যারিস হয়তো ভাইস-প্রেসিডেন্ট পেন্সের সাথে বিতর্কে ভালো করতে পারেন। বাইডেন জানান দিচ্ছেন, ‘হি ইজ ইন কন্ট্রোল’। 

ভারত-আমেরিকা বা মোদী-ট্রাম্প সম্পর্ক সম্ভবত: সর্বকালের চেয়ে চমৎকার। কমলা হ্যারিসকে প্রার্থী করে ডেমক্রেটরা হয়তো ভারত বা দক্ষিণ এশিয়াকে বার্তা দিতে চাইছে যে, তাঁরা তাদের সাথে আছেন! ভারতীয় মার্কিনীরা এতে ধরা দেবেন বলে মনে হয়না। কমলা হ্যারিস কি হিন্দু? মা বিদুষী, মাদ্রাজের হিন্দু। বাবা সম্ভ্রান্ত জ্যামাইকান খৃষ্টান। স্বামী ইহুদী। কমলা হ্যারিস নিজেকে ‘কালো’ হিসাবে প্রজেক্ট করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, কারণ হয়তো রাজনৈতিক। 

কমলা হ্যারিসের মা শ্যামলা গোপালন হ্যারিস উচ্চ শিক্ষিত, ক্যান্সার গবেষক ছিলেন। বিয়ে করেন ১৯৬৩ সালে, বিচ্ছেদ ১৯৭১। দুই মেয়েকে তিনি হিন্দুয়ানী শিখিয়েছেন। ভারতে নিয়ে গেছেন। কিন্তু কমলা হ্যারিস ভারতপন্থী হিসাবে পরিচিত নন, বরং কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা উঠিয়ে নেয়ার বিপক্ষে। সিএএ বিরোধী। কখনো পাকিস্তানকে ‘সন্ত্রাসের জন্মভূমি’ বলেননি। ইসলামী সন্ত্রাসকে শুধুই ‘সন্ত্রাস’ বলতে সাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। ক্যালিফর্নিয়ার ভারতীয়রা তাকে খুব একটা পছন্দ করেন বলে মনে হলোনা।  

কমলা হ্যারিস’র পরিবার উচ্চ-শিক্ষিত। তিনি নিজে এটর্নি, তাঁর ছোট বোন মায়া হ্যারিস এটর্নি। কমলা ক্যালিফোর্নিয়ার হাওয়ার্ড ইউনিভার্সিটির ল গ্রাডুয়েট। বিয়ে ২০১৪ সালে। স্বামী ডগলাস এমহফ। কমলার প্রথম বিয়ে, ডগলাসের দ্বিতীয় এবং দুই সন্তানের জনক। তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার ফার্ষ্ট টার্ম জুনিয়র সিনেটর। জন্ম ২০ অক্টবর ১৯৬৪। সানফ্রান্সিসকোর ডিষ্ট্রিক্ট এটর্নি, পরে ক্যালিফোর্নিয়ার এটর্নি জেনারেল। ডেমক্রেট প্রেসিডেন্ট মনোনয়ন পেতে চেষ্টা করেছেন। সফল হননি, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান ৩রা ডিসেম্বর ২০১৯।  

বড় হয়েছেন কৃষ্ণাঙ্গ ব্যাপ্টিষ্ট চার্চ ও হিন্দু মন্দিরের পরিবেশে। ৭ বছর বয়সে পিতামাতার ডিভোর্স হয়, তাঁর মা আর বিয়ে করেননি, মেয়েদের নিয়ে থেকেছেন। মেয়েদের ওপর তাই মায়ের প্রভাব বেশি। কমলা হ্যারিস এটর্নি জেনারেল থাকাকালে কোন খৃষ্টান ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর মামলা করেননি। তার বোন মায়া হার্ভার্ড গ্রাজুয়েট। কমলা হ্যারিসের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মায়া হ্যারিস ছিলেন চিফ ক্যাম্পেইন ম্যানেজার। হিলারি ক্লিনটনের নির্বাচনে তিনি ছিলেন পলিসি এডভাইজর। 

সবই ঠিক আছে, কিন্তু এতে কি ভোট আসবে? কমলা হ্যারিস অতিরিক্ত কোথাকার ভোট আনবেন, ঠিক বোঝা যাচ্ছেনা। ক্যালিফোর্নিয়া এমনিতে ডেমক্রেট ঘাঁটি। কৃষ্ণাঙ্গরা সচরাচর ডেমক্রেট। ইতিমধ্যে কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হয়েছেন, কালোরা তেমন উৎসাহিত হবে কেন? সামগ্রিকভাবে মাইনরিটি কম্যুনিটি তাঁকে ঠিক কতটা গ্রহণ করবেন? ভারতীয়রা তাঁর পক্ষে থাকার তেমন কোন কারণ নেই? অন্যদিকে ২০১৬ থেকে ট্রাম্পের ভোট কমেনি। বেড়েছে? 

ভারতে ‘জয় শ্রীরাম’ শ্লোগানের মত ট্রাম্পের ‘আমেরিকা ফাষ্ট’ বা ‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন’ শ্লোগান ভোটার গ্রহণ করেছেন। কোভিড-১৯ ইস্যু, দেড় লক্ষাধিক মৃত্যু নিয়ে ডেমক্রেটরা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ধরাশায়ী করতে চাইবেন। অর্থনীতির প্রশ্ন আসবে। তবে তেমন সুবিধা হবেনা। ভোটার জানেন, ট্রাম্প ব্যবসা ভালো বুঝেন। অর্থনীতি ওঠানামা করছে বা তেমন খারাপ পর্যায়ে যায়নি। ছয়মাস সবকিছু বন্ধ থাকলে তা যেতে পারতো, যায়নি, কৃতিত্ব ট্রাম্প নেবেন।  

শুধু কালো বলে নয়, বরং ব্রিলিয়ান্ট, স্মার্ট, ভালো বক্তা হিসাবে ওবামা প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হয়েছেন। কমলা হ্যারিস এসব গুনে গুণান্বিতা। হয়তো বাইডেনের চেয়ে বেশি বা ওভারস্মার্ট, যা সমস্যা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইতিমধ্যে বলে ফেলেছেন, কমলা হ্যারিসের চাইতেও বাইডেন বুঝেন কম! কমলা হ্যারিস প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ ভাইস-প্রেসিডেন্ট প্রার্থী। এরআগে দু’জন সাদা রিপাবলিকান সারা পলিন ও ডেমোক্রেট জেরাল্ডিন ফেরারো  ভাইস প্রেসিডেন্ট মনোনয়ন পেয়েছিলেন, জয়ী হন’নি। কমলা’র ভাগ্য কি খুলবে? 

ইতিমধ্যে তাঁর জন্ম নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। কমলা হ্যারিস ক্যালিফর্নিয়ার ওকল্যান্ডে জন্ম গ্রহণ করেন। একজন অধ্যাপক এটর্নি প্রশ্ন তুলেছেন যে, কমলার যখন জন্ম, তখন তাঁর পিতা-মাতা দু’জনে ‘ছাত্র-ভিসায়’ আমেরিকা ছিলেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এটি লুফে নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, শুনেছি কমলা হ্যারিস প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্যে যোগ্য নন, জানিনা, ডেমক্রেটদের বিষয়টি দেখা উচিত। মার্কিন সংবিধান অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট বা ভাইস-প্রেসিডেন্ট হতে জন্মসূত্রে মার্কিন নাগরিক হতে হয়। এ বিতর্ক হয়তো আরো চলবে। ওবামার নাগরিকত্ব নিয়ে দীর্ঘদিন বিতর্ক ছিলো!

#লেখক ঃ কলামিস্ট শীতাংশু গুহ, নিউইয়র্ক, guhasb@gmail.com

সার্চ/অনুসন্ধান করুন