সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

ট্রেলার বিমুখ দর্শক

১৪-আগ-২০২০ | jonmobhumi | 531 views
সাদাক ২

Spread the love

মহেশ ভট্টের পরিচালনায় ‘সড়ক টু’র ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে বুধবার। মুক্তির ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই এটি রেকর্ড গড়েছে, লাইক’-এর চেয়ে ‘ডিসলাইক’ বেশি পাওয়ায়। ইউটিউব হোক বা ডিজ়নি প্লাস হটস্টারের চ্যানেল, সংখ্যা বদলালেও ছবিটা একই।

এর কারণ, সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকে নেপো-কিডদের কাঠগড়ায় তোলা হচ্ছে ক্রমাগত। কর্ণ জোহরের চ্যাট শোয়ে সুশান্তকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করার খেসারত দিতে হচ্ছে আলিয়া ভট্টকে। ছবির ট্রেলার মুক্তি পাওয়ার অনেক দিন আগে থেকেই টুইটারে ট্রেন্ডিং ছিল #বয়কটসড়কটু। কার্যক্ষেত্রে তা-ই দেখা গেল। ছবিতে রয়েছেন আদিত্য রায় কপূর। প্রযোজক সিদ্ধার্থ রায় কপূরের ছোট ভাই আদিত্যের কেরিয়ারে হিটের চেয়ে ফ্লপ বেশি। তাই রোষের তিরে রয়েছেন তিনিও। সুশান্তের মামলায় মহেশের সঙ্গে রিয়া চক্রবর্তীর নাম জড়ানোও এই নেগেটিভ প্রচারের একটি বড় কারণ।

এক দিকে বিষোদ্‌গার, অন্য দিকে ছবির অন্য অভিনেতা সঞ্জয় দত্তের ক্যানসারের খবর প্রকাশ্যে আসায় নেটিজ়েনদের একাংশ ক্ষমাও চেয়েছেন। মঙ্গলবার রাতেই সঞ্জয়ের লাং ক্যানসারের খবর জনসমক্ষে আসে। চিকিৎসার জন্য তিনি সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন বলে খবর। তাঁর বাড়ি গিয়ে দেখা করেছেন রণবীর কপূর ও আলিয়া। রণবীরের সঙ্গে ‘শামশেরা’য় কাজ করছিলেন সঞ্জয়।

ট্রেলারে দর্শকের নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ায় বিচলিত নন পূজা ভট্ট। তাঁর টুইট, ‘‘লাভারস আর হেটারস তো একই মুদ্রার দুই পিঠ। দর্শকের কাছে কৃতজ্ঞ যে, তাঁরা সময় বার করে এই ট্রেলার ট্রেন্ডিং করে তুলেছেন।’’ টুইটটি রিটুইট করে পূজার প্রশংসা করেছেন সোনি রাজদান।

ট্রেলারে যদি এই হাল, ‘পিকচার অভি বাকি হ্যায়’ বলার সাহস কি আর দেখাবেন ছবির শিল্পীরা?

সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত সিবিআই করলে কোনও আপত্তি নেই: রিয়া

সুশান্ত সিংহ রাজপুতে র মৃত্যুর তদন্ত সিবিআই করলে তাঁর কোনও আপত্তি নেই বলে আজ সুপ্রিম কোর্টে জানালেন প্রয়াত অভিনেতার বান্ধবী রিয়া সেন। তবে একই সঙ্গে সুপ্রিম কোর্টে জমা দেওয়া অভিযোগপত্রে রিয়া দাবি করেছেন, বিহার সরকারের সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করার কোনও এক্তিয়ার ছিল না।

১৪ জুন সুশান্তের আত্মহত্যার প্রায় দেড় মাস পরে, ২৫ জুলাই পটনা পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করেছিলেন সুশান্তের বাবা কৃষ্ণকিশোর সিংহ। এফআইআরে তিনি রিয়া-সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে সুশান্তকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা ও তাঁর টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ করেছিলেন। বিহার পুলিশের তদন্ত শুরু করার দিন দশেকের মধ্যে নীতীশ কুমার সরকার সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করে এবং কেন্দ্রীয় সরকার সেই সুপারিশ মেনেও নেয়। 

তবে সিবিআইয়ের কাছে তদন্তভার যাওয়ার আগে রিয়া সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন, যেন বিহার পুলিশের কাছে করা এফআইআর মুম্বই পুলিশের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তাঁর যুক্তি ছিল, সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকে মুম্বই পুলিশই তদন্ত চালিয়ে আসছে। তাই সমান্তরাল ভাবে বিহার পুলিশের আর তদন্ত চালানোর দরকার নেই। আজ সুপ্রিম কোর্টে রিয়ার সেই আবেদনেরই শুনানি ছিল। 

এ দিন কোর্টে সুশান্তের বাবার আইনজীবী রাকেশ সিংহ জানান, এই মৃত্যুর তদন্ত যে সিবিআই-ই করবে, তা নিশ্চিত করুক শীর্ষ আদালত। একই সঙ্গে তাঁর আর্জি, মুম্বই পুলিশ যাতে সিবিআইকে সব রকম সহযোগিতা করে, তার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিক সুপ্রিম কোর্ট। বিহার পুলিশের পক্ষ থেকে আজ সুপ্রিম কোর্টে জানানো হয়েছে, সুশান্তের মৃত্যুর পরে এফআইআর-ও দায়ের করেনি মুম্বই পুলিশ। তা ছাড়া, পটনা পুলিশের যে দলটি তদন্ত করতে মুম্বই গিয়েছিল, তাদেরও কোনও সাহায্য করেনি তারা।

এ দিন শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত ফের বিহার পুলিশ ও নীতীশ কুমার সরকারের সমালোচনা করে বলেছেন, সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত মুম্বই পুলিশেরই করা উচিত। কারণ ঘটনাটি মুম্বইয়ে ঘটেছে এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা করার দায়িত্ব রাজ্যেরই।

সার্চ/অনুসন্ধান করুন