রবিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১০ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

তাদের সমালোচনায় আমরা অনুপ্রেরণা পেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী

২৭-জানু-২০২১ | jonmobhumi | 350 views

Spread the love

করোনা ভ্যাকসিনের দাম ও পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া নিয়ে সমালোচনা করায় সরকার অনুপ্রাণীত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশে করোনাভাইরাস মহামারীর ইতি টানার লক্ষ্যে নগরীর একটি হাসপাতালে কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আশাকরি সমালোচকরাও এই ভ্যাকসিন গ্রহণে সাহসী হবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যদি তারা আসেন, আমরা তাদের ভ্যাকসিন সরবরাহ করব যাতে তারা সুরক্ষিত থাকেন। তাদের যদি কিছু হয়, তবে কে আমাদের সমালোচনা করবে। সমালোচকও থাকা দরকার, যাতে আমরা আমাদের ত্রুটিগুলো জানতে পারি’।

সমালোচকদের ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা যত সমালোচনা করেছেন, আমরা ততই কাজ করার অনুপ্রেরণা পেয়েছি।’

কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংক্রান্ত সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে সমালোচনাকারীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার বলেছেন, যেকোনো কাজের সমালোচনা করা এবং এটি নিয়ে মানুষের মধ্যে সন্দেহ ও আতঙ্ক সৃষ্টি করা তাদের অভ্যাস।

তিনি বলেন, ‘দুর্ভাগ্যক্রমে আমাদের এখানে এমন কিছু মানুষ আছে যারা সমস্ত কিছুর প্রতি নেতিবাচক মনোভাব দেখান। যদিও সাধারণ মানুষ তাদের কাছ থেকে কোনো সহায়তা পান না, তারা যেকোনো কাজ নিয়ে বিরূপভাবে সমালোচনা করেন এবং এ নিয়ে জনগণের মধ্যে সন্দেহ, ভয় ও আতঙ্ক তৈরি করেন। এটি তাদের অভ্যাস।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে এই টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর ভার্চ্যুয়াল উপস্থিতিতে পাঁচজনকে টিকা দেয়া হয়।

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তাকে টিকা দেয়ার মধ্য দিয়ে এই কর্মসূচি শুরু হয়। সমালোচকদের প্রতি ইঙ্গিত করে শেখ হাসিনা বলেন, তারা সবকিছুতে অস্বস্তি বোধ করা রোগে ভুগছেন।

তারা (সমালোচনাকারীরা) সবকিছুতে ত্রুটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করেন উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘আমি জানি না এই রোগের চিকিৎসা কী এবং এর জন্য কোনো ভ্যাকসিন পাওয়া যায় কিনা।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভ্যাকসিন আসবে কি আসবে না, দাম কেমন হবে, এর পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া কী হবে ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তারা (সমালোচকরা) অনেক প্রশ্ন উত্থাপন করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, এটি বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন কারণ বিশ্বের অনেক দেশের আগেই আমরা কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচি শুরু করতে সক্ষম হয়েছি।

‘আজকের দিনটি বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন। কারণ, বিশ্বের অনেক দেশ এখনও কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচি শুরু করতে পারেনি। কিন্তু আমাদের মতো জনবহুল দেশ এটি করতে সক্ষম হয়েছে। আজ প্রমাণিত হয়েছে যে আমরা জনসাধারণের কল্যাণে কাজ করি,’ বলেন তিনি। এ টিকাদান কর্মসূচি সফল করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সার্চ/অনুসন্ধান করুন