শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৯ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

যুক্তরাষ্ট্রে মানব পাচারের দায়ে বাংলাদেশির কারাদণ্ড

০৮-জানু-২০২১ | jonmobhumi | 17 views

Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক: যুক্তরাষ্ট্রে মানব পাচারের দায়ে মোক্তার হোসেন নামে এক বাংলাদেশির ৪৬ মাস কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির আদালত। মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে আদম পাচারকারী শক্তিশালী চক্রের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন মোক্তার হোসেন।স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত এ রায় প্রদান করেন।
আটকের পর মোক্তার হোসেন স্বীকার করেন যে, ২০১৭ সালের মার্চ থেকে ২০১৮ সালের আগস্ট পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশি নাগরিকদের অর্থের বিনিময়ে টেক্সাস সীমান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে আনার ষড়যন্ত্র করেছিলেন। মোক্তার মেক্সিকোয়ের মন্টেরেতে কাজ করতেন। সেখানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পথে একটি হোটেল ও বাড়ি ভাড়া করে রেখেছিলেন পাচার হওয়া বাংলাদেশিদের বসবাসের জন্য। মোক্তার পাচারের উদ্দেশ্যে জড়ো করা সেই আদমদের মার্কিন সীমান্তে পরিবহণের জন্য ড্রাইভারদের অর্থ প্রদানের করে কীভাবে রিও গ্র্যান্ডে নদী পার করবেন সে বিষয়ে তাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছিলেন বলে উল্লেখ করেন।
বিচার বিভাগের বিভাগের ফৌজদারি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ডেভিড পি বার্নস বলেন, “আসামিপক্ষ একটি সংগঠিত চোরাচালান নেটওয়ার্কের মূল খেলোয়াড় ছিল যে মুনাফার জন্য পরিচালিত আসছে। বাংলাদেশি নাগরিক যারা বেআইনীভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে চেয়েছিল তারা তাদের শিকার হয়েছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি আরো বলেন, “এই বাক্যটি এই জাতীয় ট্রান্সন্যাশনাল অপরাধী সংস্থাগুলির অংশগ্রহীদের পক্ষে স্পষ্ট প্রতিবন্ধক হিসাবে কাজ করে যারা আর্থিক লাভের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিদেশিদের যাতায়াতকে অবৈধভাবে যাতায়াত করে আমাদের সীমান্তের সুরক্ষা হ্রাস করতে চায়।”
যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চল টেক্সাসের মার্কিন অ্যাটর্নি রায়ান কে প্যাট্রিক বলেছেন, সীমান্ত সুরক্ষা এবং জাতীয় সুরক্ষা এক। আমাদের অবশ্যই জানা উচিত যে দেশে কে আসছে, এবং আমরা অবারিত যাতায়াতের অনুমতি দিতে পারি না। আমার অফিস এই মিশনটি সম্পাদন করে আমাদের সমস্ত অংশীদারদের সাথে কাজ করে চলেছে ”
“বিদেশী সহযোগীদের সাথে আন্তর্জাতিক সীমানা জুড়ে তদন্তমূলক প্রচেষ্টাকে সমন্বিত করার জন্য এইচএসআইয়ের দক্ষতার ফলস্বরূপ হিসেবে মোক্তার হোসেনের তদন্ত, মামলা ও সাজা দেওয়া হয়েছে। সান আন্তোনিও’র মার্কিন অভিবাসন ও শুল্ক প্রয়োগের হোমল্যান্ড সুরক্ষা তদন্তের ইনচার্জ শেন ফোল্ডেন বলেছেন, এইচএসআই আমাদের আইন প্রয়োগকারী অংশীদারদের সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সুরক্ষার জন্য হুমকির কারণ হিসাবে অপরাধমূলক ভ্রমণ নেটওয়ার্ককে আক্রমণাত্মকভাবে বাতিল করতে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক উভয় পক্ষের সাথে কাজ চালিয়ে যাবে।”
এইচএসআই ল্যারেডো এইচএসআই হিউম্যান পাচারকারী ইউনিট, এইচএসআই মন্টেরেরি, এইচএসআই হিউস্টন, এইচএসআই ক্যালিক্সিকো, মার্কিন কাস্টমস এবং বর্ডার প্যাট্রোল, ইউএস বর্ডার প্যাট্রোল এবং মার্কিন মার্শাল সার্ভিসের সহায়তায় এই মামলাটি তদন্ত করেছিলেন। বিচার বিভাগের ফৌজদারি বিভাগ এবং এইচএসআইয়ের যৌথ অংশীদারিত্বের বহির্মুখী অপরাধ ট্র্যাভেল স্ট্রাইক ফোর্স (ইসিটি) প্রোগ্রামের আওতায় এই তদন্ত পরিচালিত হয়। ইসিটি প্রোগ্রামটি মানব চোরাচালান নেটওয়ার্কগুলিকে কেন্দ্র করে যা নির্দিষ্ট জাতীয় সুরক্ষা বা জননিরাপত্তা ঝুঁকি, বা গুরুতর মানবিক উদ্বেগ উপস্থাপন করতে পারে। ইসিটি তদন্তকারী, বুদ্ধিমত্তা এবং প্রসিকিউটরিয়াল সংস্থানকে উত্সর্গ করেছে। ইসিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য সরকারী সংস্থা এবং বিদেশী আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষের সমন্বয় করে এবং সহায়তা গ্রহণ করে।
টেক্সাসের দক্ষিণ জেলার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অ্যাটর্নি অফিসের সহায়তায় এই মামলাটি ফৌজদারি বিভাগের মানবাধিকার এবং বিশেষ মামলা বিভাগের বিচারক অ্যাটর্নি জেমস হেপবার্ন এবং এরিন কক্সের দ্বারা বিচার করা হয়।

সূত্রঃ বাংলা প্রেস

সার্চ/অনুসন্ধান করুন