সোমবার, ৪ঠা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি.
সাপ্তাহিক জন্মভূমি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

সেভেরোদনেতস্কে ইউক্রেনীয় সৈন্যদের জন্য ‘নরক’ হয়ে উঠেছে : কিয়েভ

২৩-জুন-২০২২ | jonmobhumi | 9 views

Spread the love

ইউক্রেনের যুদ্ধক্ষেত্র পূর্বাঞ্চলীয় লুগানস্ক অঞ্চল এবং প্রধান শহর সেভেরোদনেতস্কে রুশ বাহিনীর ভয়ঙ্কর বোমাবর্ষণে ইউক্রেন সৈন্যদের জন্য ‘নরক’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বুধবার কিয়েভ এ কথা জানিয়ে বলেছে, প্রতিরোধ যোদ্ধারা ‘যতক্ষণ প্রয়োজন’ তাদের অবস্থান ধরে রাখবে।

মস্কোর সৈন্যরা কয়েক সপ্তাহ ধরে পূর্ব ইউক্রেনে জোরালো হামলা চালাচ্ছে এবং ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর কাছ থেকে প্রচণ্ড প্রতিরোধ সত্ত্বেও ধীরে ধীরে অগ্রসর হচ্ছে।

ভ্লাদিমির পুতিনের বাহিনী দনবাসের কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ শহর সেভেরোদনেতস্কের উপর তাদের দখল শক্ত করার সাথে সাথে এর নিকটস্থ শহর লিসিচানস্ক এখন ভারী বোমা বর্ষণের শিকার হচ্ছে।

লুগানস্ক অঞ্চলের গভর্নর টেলিগ্রামে লিখেছেন, লিসিচানস্কে ‘রাশিয়ান বাহিনী সবকিছু ধ্বংস করছে’। লুগানস্ক অঞ্চলের মধ্যেই সেভেরোদনেতস্ক ও লিসিচানস্ক শহর অবস্থিত।

তিনি লিখেছেন, দোনেৎস নদীর ওপারে সেভেরোদনেতস্কে চার মাস ধরে গোলাবর্ষণের পর ‘এটি এখন নরকে’ পরিণত হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সৈন্যরা তাদের অবস্থান ধরে রেখেছে এবং যতক্ষণ প্রয়োজন ততদিন ধরে রাখবে।’

রাশিয়াপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীরা দাবি করেছে, তারা লিসিচানস্ক এবং সেভেরোদনেতস্কে উভয় শহর কাছাকাছি অবস্থান থেকে ঘিরে রেখেছে।

লুগানস্কেও বিচ্ছিন্নতাবাদী সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তা আন্দ্রেই মারোচকো রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দাবি করেছেন যে, তারা ‘গত কয়েক দিন ধরে বিশাল কাজ করেছেন।’

শহর দু’টি মস্কোর নিয়ন্ত্রণে গেলে তারা গোটা লুগানস্কের নিয়ন্ত্রণ করবে এবং দনবাস অঞ্চলের দিকে এগিয়ে যাবে।

ফেব্রুয়ারিতে অভিযান শুরুর পর কিয়েভ দখলের চেষ্টায় পিছু হটে মস্কো এখন ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চল দখলের চেষ্টা করছে। তবে তারা দেশের অন্যান্য এলাকায়ও বোমা হামলা চালাচ্ছে।

এএফপি’র এক সংবাদদাতা বলেছেন, রাশিয়ার গোলা বর্ষণে পাঁচ নিহত হওয়ার একদিন পর রাশিয়া সীমান্তের কাছে খারকিভ শহর বুধবার প্রায় খালি হয়ে গেছে।

সূত্র : বাসস

সার্চ/অনুসন্ধান করুন